নতুন চালে স্বস্তি, পুরনোতে ক্ষুব্ধ ক্রেতারা | বিজনেস | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ৭ কার্তিক ১৪২৮
বিজনেস

নতুন চালে স্বস্তি, পুরনোতে ক্ষুব্ধ ক্রেতারা

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৭ মে ২০২১ ১৩:৩৪ আপডেট: ২৩ অক্টোবর ২০২১ ০০:২২

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ৭ মে ২০২১ ১৩:৩৪


ফাইল ফটো

বাজারে নতুন চাল আসায় দাম কিছুটা কমতে শুরু করেছে। মোটা ও মাঝারি মানের চাল প্রতি কেজিতে ২ থেকে ৫ টাকা কমেছে। তবে পুরাতন নাজির ও মিনিটেসহ ভালো মানের চাল আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।

মিল মালিকরা বলছেন, দেশে ধান কাটা পুরোপুরি শুরু হয়নি। বেশি দামে কেনা ধানের চাল বাজারে বিক্রি হচ্ছে। তাই এখনও দাম কিছুটা বেশি।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলেন, পুরনো চাল বেশি দামে কেনা ছিল, তাই আগের দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে। নতুন চাল বাজারে আসছে শুরু করেছে। তাই নতুন চালের দাম কম। ধান পুরোপুরি কাটা শুরু হলে দাম আরও কমবে।

এদিকে, বাজারে পুরনো চালের দাম না কমায় ক্ষুব্ধ ক্রেতারা। বাজার মনিটরিংয়ের মাধ্যমে চালের ন্যায্য দাম নির্ধারণের কথা বলছেন তারা।

শুক্রবার (৭ মে) রাজধানীর বাড্ডা, রামপুরা ও মালিবাগ এলাকায় দেখা গেছে, পুরাতন ভালো মানের মিনিকেট ও নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৬৪-৬৫ টাকায়। তবে নতুন মিনিকেট ও নাজির বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৬০ টাকায়। অর্থাৎ, পুরাতন চালের দামের তুলনায় নতুন চাল কেজি প্রতি পাঁচ টাকা কম। মধ্যমানের মিনিটে চাল বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকা কেজিতে আর হাসকি নাজির বিক্রি হচ্ছে ৫২ টাকা কেজি দরে।

দীর্ঘদিন ধরে ৫৪-৫৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া লতা বা ২৮ নম্বর চাল বিক্রি হচ্ছে ৫২ টাকা কেজিতে। কেজিপ্রতি ২ টাকা কমে ৫০ টাকার মোটা স্বর্ণা চাল ৪৭ থেকে ৪৮ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ৫২ থেকে ৫৪ টাকা বিক্রি হওয়া পাইজম চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৯-৫০ টাকা কেজি দরে। অর্থাৎ, এই জাতের চালও কেজিপ্রতি দু টাকা কমেছে।

এছাড়াও বাজারগুলোতে ভালোমানের কাটারিভোগ চাল বিক্রি হচ্ছে ৯৫-১০০ টাকা, মধ্যমানের কাটারিভোগের চাল বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা কেজি। সিদ্ধকাটারি চাল বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকা কেজিতে। টেপু শাইল বিক্রি হচ্ছে ৬৫ টাকা কেজিতে। চিনি গুড়া পোলাও চাল ১০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর চিনিগুড়া ক্ষুদ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজিতে। বাসমতি চাল বিক্রি হচ্ছে ৭৫-৮০ টাকা কেজিতে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top