সাত দিনে পণ্য ডেলিভারী না দিলে ই-কমার্সের জরিমানা | বিজনেস | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮
বিজনেস
নীতিমালা চূড়ান্ত করছে বাণিজ্য মন্ত্রনালয়

সাত দিনে পণ্য ডেলিভারী না দিলে ই-কমার্সের জরিমানা

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:৫০ আপডেট: ৭ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:৫১

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০২০ ২৩:৫০


ফাইল ফটো

এখন থেকে অর্ডার দেয়ার সাত থেকে ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারী না দিলে জরিমানা দিতে হবে ই-কমার্স কোম্পানীগুলোকে। এছাড়াও নির্ধারিত সময় পার হলে জরিমানার পাশাপাশি গ্রাহকের টাকাও ফেরত দিতে হবে। এমনকি তারা পণ্য সরবরাহ জালিয়াতির মামলায় দোষী সাব্যস্ত হবে। 

এসব শর্ত যুক্ত করে ই-কমার্স নীতিমালা চূড়ান্ত করতে যাচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এ জাতীয় অনেক নির্দেশিকাসহ, ই-কমার্সকে আরও সহজলভ্য করতে একটি নীতি সমৃদ্ধ ব্যবসায়ীক মডেল প্রণয়ন করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ইতোমধ্যে ই-কমার্স নীতিমালার একটি খসড়া চূড়ান্ত করেছে। নীতিমালা চূড়ান্ত করার জন্য বাণিজ্যমন্ত্রী এবং মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি এবং ই-কমার্স খাতের প্রতিনিধিদের সঙ্গে শিগগিরই বৈঠকে বসবে।  

প্রথমত এই নীতিমালা শুধুমাত্র ওয়েবসাইট ভিত্তিক ই-কমার্স কোম্পানিগুলোর জন্য। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পরবর্তীতে ফেসবুক ও অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচালিত ক্ষুদ্র ই-কমার্স উদ্যোগের জন্য আলাদা নীতিমালা জারি করবে। বর্তমানে ওয়েবসাইট ভিত্তিক ই-ক কমার্স প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা পা্রয় ২০০০টি। এছাড়াও ফেসবুক ও অন্যান্য সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ভিত্তিক ৫০ হাজার উদ্যোগ রয়েছে।  

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বিদ্যমান অসংগতি হ্রাস এবং গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষার মাধ্যমে সরকার ই- কমার্স খাতকে সমৃদ্ধ করার জন্য নীতিমালা তৈরি করছে।  

মন্ত্রণালয়ের আশা গ্রাহকের আস্থা ফিরিয়ে আনার জন্য স্বচ্ছ নীতিমালা প্রণয়ন করা গেলে আগামী বছর ই- কমার্স খাতে ৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে।  

খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে যে অনলাইনে অর্ডার করার সর্বোচ্চ ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ডেলিভারি ম্যানের কাছে পণ্য হস্তান্তর করতে বাধ্য থাকবে ই-কমার্স কোম্পানি।  

ক্রেতা ও বিক্রেতার অবস্থান একই জেলায় হলে সাত দিনের মধ্যে ডেলিভারি কোম্পানিকে গ্রাহকের কাছে পণ্য পৌঁছে দিতে হবে। ক্রেতা যদি অন্য জেলার হয় তবে কোম্পানি ক্রেতার ঠিকানায় পণ্যটি পৌঁছে দিতে সর্বোচ্চ ১০ দিন সময় পাবে। এ সময়ের বেশি হলে জরিমানা গুনতে হবে এবং গ্রাহকের আগে পরিশোধ করা টাকা ফেরত দিতে হবে।  

খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, পণ্যের মজুদ না থাকলে কোনো কোম্পানি অর্ডার গ্রহণ করতে পারবে না। পণ্যের মান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য অনলাইনে প্রদর্শনের সময় অবশ্যই পণ্যের সঠিক বিশেষত্ব উল্লেখ করতে হবে। ভালোমানের ছবি দেখিয়ে নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করা হলে এটি অবশ্যই প্রতারণা হিসেবে বিবেচিত হবে। এই ক্ষেত্রে, দণ্ডবিধির ৪২০ ধারাটি ক্রেতাদের পক্ষে থাকবে কারণ তারা জালিয়াতির মামলা করতে পারে।
 
এ বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কেন্দ্রীয় ডিজিটাল কমার্স সেলের কো-অর্ডিনেটর হাফিজুর রহমান বলেন, নীতিমালাটি অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় উত্থাপনের আগে উদ্যোক্তা, বিশেষজ্ঞ ও এ সম্পর্কিত সরকারি বিভাগের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বসে চূড়ান্ত করা হবে।  

তিনি আরও বলেন, ভোক্তাদের অধিকার রক্ষায় খসড়া নীতিমালা তৈরি করা হয়েছে। নীতিমালাটি কার্যকর হলে ভোক্তাদের আস্থা তৈরি করে ই- কমার্স খাতের উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।  

হাফিজুর রহমান বলেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে নীতিমালাটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব দেওয়া হবে। এজন্য অধিদপ্তর আইন সংশোধন করা হবে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top