করোনাকালে মন্দায় মৌসুমী পতাকা ব্যবসায়ীরা | দেশজুড়ে | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | বৃহঃস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮
দেশজুড়ে

করোনাকালে মন্দায় মৌসুমী পতাকা ব্যবসায়ীরা

নাহিদ আল মালেক,বগুড়া অফিস

প্রকাশিত: ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৭:৩০ আপডেট: ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৭:৩১

নাহিদ আল মালেক,বগুড়া অফিস | প্রকাশিত: ১৩ ডিসেম্বর ২০২০ ১৭:৩০


 বিজয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় পতাকা বিক্রি

আর দু’দিন পরেই ১৬ ডিসেম্বর। ৪৯ তম মহান বিজয় দিবস। প্রতিবছর বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস এলেই লাল সবুজের জাতীয় পতাকার কদর বাড়ে। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে এবার মৌসুমী পতাকা ব্যবসায়ীদেরও মন্দাকাল যাচ্ছে।
মনিরুল ইসলাম (২৫)। বাড়ি ঝিনাইদহে। জাতীয় দিবসের আগে প্রতিবছরই দেশের বিভিন্ন জায়গায় দিয়ে ফেরি করে জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন। লাল সবুজের কাপড়ে সেলাই করা পতাকা কিনে এনে বিক্রি করি আমরা। প্রতিবছর প্রচুর বিকিকিনি হলেও এবার করোনা ভাইরাসের কারণে ক্রেতাদের আগ্রহ কম বলে জানালেন।
তিনি বলেন, বিজয়ের দিবসের পুর্বে দুই সপ্তাহে আগে ৫শতাধিক পতাকা বিক্রি হতো। এবার করোনা ভাইরাসের কারণে অর্ধেকও বেচতে পারিনি।
শুধু মনিরুলই নয় এরকম মৌসুমী পতাকা বিক্রি করে বাড়তি উপার্জনের চেষ্টা করে থাকেন অনেক যুবক।
হরেক রকম জাতীয় পতাকার পসরা সাজিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘোরেন তারা জীবিকার সন্ধানে। ছোট থেকে বড় কিংবা মাঝারি বিভিন্ন সাইজের পতাকা থাকে তাদের কাছে। দাম ২০ টাকা থেকে শুরু করে ১৫০টাকা পর্যন্ত।
আর দেশপ্রেমের টানে অনেকেই এই পতাকা সংগ্রহ করে থাকেন। কেউবা বাড়িতে বা নিজ প্রতিষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন করেন আবার অনেকে মোটরসাইকেল-রিক্সার সামনে ছোট পতাকা লাগিয়ে নিয়ে বিজয়ের দিনে ঘোরাঘুরি করেন।
মনিরুল আরো জানান, পতাকা ছাড়া জাতীয় পতাকার চিহ্ন সম্বলিত মাথার ব্যান্ড, হাত ব্যান্ড ইত্যাদি বিক্রি করি। শিশু ও ছাত্ররা এর প্রধান ক্রেতা হলেও করোনা ভাইরাসের কারণে এবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ তাই বিক্রিও কমে গেছে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top