সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২ , ১৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

modhura
Aporup Bangla

সংগ্রামী পথচলা একজন মডেল ইরফান সাঈদ

লাইফস্টাইল

সৈকত ইসলাম

প্রকাশিত: ২১:২১, ১৬ অক্টোবর ২০২২

সর্বশেষ

সংগ্রামী পথচলা একজন মডেল ইরফান সাঈদ

মডেল ইরফান সাঈদ

মডেলিং জগতে ইরফান সাঈদ এক পরিচিত নাম। ইরফান সাঈদ বর্তমানে ইংল্যান্ডে অবস্থান করছেন। অতি সম্প্রতি ইংল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ আর্টস হতে গ্লোবাল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট এ স্নাতোকোত্তর শেষ করলেন। 
গত ১৪ অক্টোবর ইরফান সাঈদ’র মাস্টার্স’র সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষ হলে তার এক ফেসবুক পোস্ট হতে আমরা ইরফান সাঈদ’র জার্নি সম্পর্কে যা জানতে পারি : 

২০২১ সালে বাংলাদেশ থেকে উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্যে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ ক্রিটিভ আর্টস (UCA) গ্লোবাল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট সাবজেক্ট পড়তে আসি। গত ১৪ অক্টোবর আমার কোর্সের এক বছর সম্পন্ন হয় এবং সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করি। 
আমার বিদেশে উচ্চশিক্ষার জার্নিটা সহজ ছিল না। মা-বাবার দোয়া এবং বড় ভাইয়ের সহযোগিতায় আজকে আমার এ উচ্চ শিক্ষার সফলতা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সব সময় আমার পাশে ছিলেন। করোনাকালীন অনেক খারাপ সময় ছিলো। এর মধ্য থেকে অনলাইন অফলাইন দু’ভাবে ক্লাস করে সম্পন্ন করা হয়। আল্লাহর শুকরিয়া এবং সবার কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। আমার সব সময় যারা পাশে ছিলেন, আশাকরি সামনেও থাকবেন। 
তিনি তার ফেসবুক পোস্টে আরো লিখেন,
ভয় কে জয় করে এগিয়ে যেতে হয়। আর সবচেয়ে বড় বিষয় নিজের প্রতি আস্থা রাখা, এটা খুবই জরুরী। আমার জীবনের চলার পথে অনেক হোঁচটের পরেও আবার ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছি। ছোটবেলা থেকে পড়াশোনার জন্য মা-বাবার শাসন কতটা দরকার ছিলো তা এখন মনে হয়। 
মা-বাবার দোয়া, উৎসাহ, শাসন ও সহযোগিতায় আজকে আমার স্বপ্ন পূরণে পাথেয় হয়েছে। মা-বাবা সব সময় চেয়েছিলেন যেনো, ভালো মনের মানুষ হতে পারি। 
জীবনে তা চেষ্টা করে যাচ্ছি। 
পড়ালেখার জার্নিটা আমার জন্য সহজ ছিলো না, অনেক কঠিন হয়েছে। বিশেষ করে করোনাকালীন সময় ক্লাস ও সব কিছুর জন্য বাধা ছিলো। সব বাধা বিপত্তিকে জয় করে এগিয়ে গিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অনেক সহযোগিতা করেছেন, যা অকল্পনীয়। এবং মা-বাবা, ভাই-বোন সবার সহযোগিতায় আজকে আমি আমার পড়াশোনা সম্পন্ন করতে পেরেছি। ধন্যবাদ জানাই তাদের, যাদের জন্য পড়াশোনার পথটি সহজ হয়েছে। 
তবে তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ যারা আমাকে প্রতিনিয়ত জাজ করে, ছোট করে কথা বলতে পিছপা হয় নি। আমি সত্যি আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞ; হয়তো আপনাদের এমন ভালোবাসা না থাকলে আজকে এ পর্যন্ত আসতে পারতাম না। 
নিজেকে অনেক এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। বিশ্বব্যাপী কাজ করতে চাই। ভালোবাসার মানুষগুলোর উপকারে আসতে চাই। সবার কাছে দোয়া ও ভালোবাসার আরজি রইলো। 

ইরফান সাঈদ ২০১৮ সালে ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হতে B.S-C ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করেন। এরপর টানা দু’বছর চাকরি এবং পাশাপাশি মডেলিং করেন।
কক্সবাজারের সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান ইরফান সাঈদ লেখাপড়ার পাশাপাশি শখের বসে মডেলিং এবং অভিনয়ে নিয়মিত ছিলেন। 
২০১৪ সালে চ্যানেল আইয়ের সিটিসেল ‘তারকা কথন’ থেকে তার মিডিয়া যাত্রায় হাতে খড়ি হয়। এরপরে `সুহৃদ মডেল ফেয়ার’র ব্যানারে অনেক পোশাক ব্র্যান্ড’র সাথে কাজ করা হয়েছে।
এর মধ্যে BANG, অঞ্জনস, অপাস, বিহঙ্গ, ইন্ডিগোসহ আরো অন্যান্য ব্র্যান্ডের সাথে কাজ করার সুযোগ হয়েছিলো। এর পাশাপাশি অনেক ডিজাইনারের ব্রাইডাল পোশাক ফ্যাশন-শোতে অংশগ্রহণ করা হয়েছে।
একাধিক টিভি ফ্যাশন শোতে অংশগ্রহণ করেন তিনি। GTV, NTV, SA TV, Bangla Vision, Desh TV. 
একাধিক টিভি বিজ্ঞাপনেও কাজ করার সুযোগ হয়েছে। এর মধ্যে আনোয়ার সিমেন্ট, প্রাণ আপের কাজ উল্লেখ যোগ্য। দেশে ফিরে ইরফান সাঈদ আনন্দ-আলো, সুহৃদ মডেল ফেয়ারের সাথে যুক্ত থেকে মডেল হিসেবে কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার চেষ্টা করবেন বলে তিনি আশাবাদী।
 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়