সাভারে চলন্ত বাসে ধর্ষণ, আটক ৬ | জাতীয় | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮
জাতীয়

সাভারে চলন্ত বাসে ধর্ষণ, আটক ৬

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২১ ১১:৪২ আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ০১:২৯

নিজস্ব প্রতিনিধি | প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২১ ১১:৪২


সাভারের আশুলিয়ায় চলন্ত মিনিবাসে নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (অপারেশন) আব্দুর রশিদ শনিবার (২৯ মে) সকালে বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, শুক্রবার রাতে চলন্ত বাসে এক নারীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। আটকরা থানা হেফাজতে রয়েছেন। ভিকটিমকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠানো হচ্ছে। এঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতিও চলছে বলেও জানান তিনি।

গ্রেফতাররা হলেন- ঢাকার তুরাগ থানার গুলবাগ ইন্দ্রপুর ভাসমান গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে আরিয়ান (১৮), কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানার তারাগুনা এলাকার মৃত আতিয়ারের ছেলে সাজু (২০), বগুড়ার ধুনট থানার খাটিয়ামারি এলাকার সুলতান মিয়ার ছেলে সুমন (২৪), নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দর থানার ধামঘর এলাকার জহুর উদ্দিনের ছেলে মনোয়ার (২৪) ও বগুড়ার ধুনট থানার খাটিয়ামারি এলাকার তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে সোহাগ (২৫) এবং বগুড়ার ধুপচাচিয়া থানার জিয়ানগর গ্রামের সামছুলের ছেলে সাইফুল ইসলাম (৪০)। তারা সবাই তুরাগ থানার কামারপারা ভাসমান এলাকায় ভাড়া থেকে আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল-নবীনগর মহাসড়কে মিনিবাস চালাত।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ভুক্তভোগীর বোন মানিকগঞ্জে বসবাস করেন। তিনি বোনের জন্য একটি মোবাইল ফোন কিনে শুক্রবার (২৮ মে) বোনের বাসা মানিকগঞ্জ যান। সেখান থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে বাসে উঠেন। রাত ৮টার দিকে আশুলিয়ার নবীনগর বাসস্ট্যান্ডে তাকে নামিয়ে দেয়। এ সময় বাসের জন্য অপেক্ষা করলে পরিচিত ২-৩ জনের সঙ্গে দেখা হয়।

রাত ৯টার দিকে নিউগ্রাম বাংলা মিনিবাসের হেলপার মনোয়ার ও সুপারভাইজার সাইফুল ইসলাম এসে টঙ্গী স্টেশন রোডের কথা বলে ৩৫ টাকা ভাড়া চায়। পরে সঙ্গে একজনকে নিয়ে মিনিবাসে উঠলে গন্তব্যে যাওয়ার আগেই যাত্রীদের নামিয়ে দেয়। তারা ভুক্তভোগীকে জোরপূর্বক বাসে করে নবীনগর নিয়ে আসে। এ সময় বাসের জানালা-দরজা বন্ধ করে ভুক্তভোগী তরুণীকে দলবেধে ধর্ষণ করে বাসের চালক, হেলপারসহ ৬ জন। ভুক্তভোগীর সঙ্গে থাকা ব্যক্তির চিৎকারে টহল পুলিশ বিষয়টি বুঝতে পেরে বাস থামায়। পরে ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করে ছয়জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top