পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে | জাতীয় | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮
জাতীয়
সাংবাদিকদের ইসি সচিব

পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ২২:৩১ আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০২১ ১৩:৪৭

অপরূপ বাংলা প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারী ২০২১ ২২:৩১


ইসি সচিব মো. আলমগীর

দেশের সবগুলো পৌরসভা নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি অত্যন্ত ভালো ও শান্তিপূর্ণ ছিল বলে দাবি করেছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, ‘পৌরসভা নির্বাচনে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে। গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী কেন্দ্রে অনেক ভোটার উপস্থিতি ছিল। সবাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোট দিয়েছেন।’

শনিবার (১৬ জানুয়ারি) আগারগাঁও নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

ইসি সচিব বলেন, ‘সাড়ে ৬০০ ভোট কেন্দ্রের মধ্যে দু’একটি কেন্দ্রে সহিংসতার তথ্য পেয়েছি। এটি বড় কিছু নয়। আর আমাদের দেশে কোন নির্বাচনে সহিংসতা হয় না? কমবেশি সব নির্বাচনেই হয়। কিছু এলাকায় দুষ্কৃতিকারীরা নির্বাচনের পরিবেশ ক্ষুণ্ন করার চেষ্টা করে। তারা নির্বাচনের কাজকে বিঘ্ন করার চেষ্টা চালায়। কিন্তু আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এটা নিয়ন্ত্রণ করেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘৬০টি পৌরসভার মধ্যে রাজশাহীর বোয়ালমারী পৌরসভার একটি কেন্দ্রে দুষ্কৃতকারীরা ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছে। কিন্তু তারা ব্যালট পেপার নিয়ে যেতে পারেনি। তবে ব্যালট বাক্স যেহেতু ভেঙে গেছে প্রিজাইডিং অফিসার ওই নির্বাচনি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন। কিশোরগঞ্জেও একটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা হয়েছিল সেটারও নির্বাচন বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া ৬০টি পৌরসভার সব কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে ভোট সম্পন্ন হয়েছে।’

মো. আলমগীর বলেন, ‘এ পর্যন্ত আমরা যে তথ্য পেয়েছি সেখানে ইভিএমে সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ ভোট পড়েছে। তবে ব্যালটে এ হার সর্বোচ্চ ৭৫ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ১৫ শতাংশ। অবশ্য এটি চূড়ান্ত হিসাব নয়। সার্বিক হিসেবে থেকে ৭০-৭৫ শতাংশ ভোট পড়তে পারে।’

নির্বাচন বিষয়ে কমিশনার মাহবুব তালুকদারের বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন আর নিরপেক্ষ নির্বাচন ভিন্ন বিষয়। ইসির দায়িত্ব নিরপেক্ষ নির্বাচন করা। নির্বাচনে যদি কেউ না আসে তাহলে সেখানে ইসির কিছুই করার নেই। নির্বাচনে আসা না আসার বিষয়ে রাজনৈতিক দলের একটি কৌশল হতে পারে।’




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top