মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২ , ১৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

modhura
Aporup Bangla

গাইবান্ধায় ভোট বন্ধে ৬৮৫ জনের শুনানি করবে তদন্ত কমিটি

জাতীয়

প্রকাশিত: ২২:৫৮, ১৬ অক্টোবর ২০২২

সর্বশেষ

গাইবান্ধায় ভোট বন্ধে ৬৮৫ জনের শুনানি করবে তদন্ত কমিটি

ছবি : ইন্টারনেট

আগামী ১৮ থেকে ২০ অক্টোবর বন্ধ ঘোষিত গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনের ‘ব্যাপক অনিয়ম’ খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার লক্ষ্যে ৬৮৫ জনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। স্থানীয়ভাবে এ শুনানির জন্য আদেশ জারি করেছে তদন্ত কমিটি।

গত ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচন সিসি ক্যামেরায় পর্যবেক্ষণ করে নির্বাচন কমিশন ৫০টি, রিটার্নিং কর্মকর্তা একটি; মোট ৫১ টি ভোটকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করে। পরবর্তীতে নির্বাচনের যৌক্তিকতা না থাকায় পুরো নির্বাচনের ভোটগ্রহণ বন্ধ করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। এরপর ঘটনার প্রকৃত কারণ উদঘাটনের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করতে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়।
 
ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথকে প্রধান করে গঠিত ওই কমিটির সদস্য সচিব করা হয় যুগ্ম সচিব মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরীকে। আর সদস্য করা হয় যুগ্ম সচিব মো. কামাল উদ্দিন বিশ্বাসকে।
 
কমিটি রোববার (১৬ অক্টোবর) তিনদিনে বন্ধ ঘোষিত কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট মোট ৬৮৫ জনের শুনানি করার সিদ্ধান্ত নেয়। একই সঙ্গে সময় তারিখ জানিয়ে সংশ্লিষ্টদের উপস্থিত থাকার নির্দেশনা দেয়।
 
নির্দেশনা থেকে জানা গেছে, ১৮ অক্টোবর গাইবান্ধা সার্কিট হাউজে ১১ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৬৬ জন সহাকারি প্রিজাইডিং অফিসার, ৫৫ জন পোলিং এজেন্ট (প্রত্যেক প্রার্থীর পক্ষ থেকে), গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা, ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা; মোট ১৩৬ জনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
 
১৯ অক্টোবর উপজেলা সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সভাকক্ষে ৪০ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ২৭৮ জন সহকারী প্রজিাইডিং কর্মকর্তা, ২০০ জন পেলিং এজেন্ট (প্রত্যেক প্রার্থীর পক্ষে), সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা, সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা; মোট ৫২২ জনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
 
এছাড়া ২০ অক্টোবর গাইবান্ধা সার্কিট হাউজে পাঁচ প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী, ১৭ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, বিজিবি ও র‌্যাবের কমান্ডিং অফিসার দুইজন, রিটার্নিং অফিসার, পুলিশ সুপার এবং জেলা প্রশাসক; এই মোট ২৭ জনের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
 
এছাড়াও শুনানির প্রথম দুই দিন স্থানীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং মিডিয়া ব্যক্তিরাও উপস্থিত থাকবেন।
 
ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী তদন্ত কমিটির কার্যপরিধি:
(ক) পোলিং এজেন্ট বা ভোটার ছাড়া অন্যান্য ব্যক্তিদের গোপনকক্ষে প্রবেশ, গোপনকক্ষে ভোটদান প্রত্যক্ষকরণ, ভোটারদের কোনো প্রার্থীকে ভোটদানে বাধ্যকরণ বা প্রভাবিতকরণ, মোবাইল ক্যামেরা দিয়ে গোপনকক্ষের ছবি ধারণ ইত্যাদির বিষয়ে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন ও দোষী/দায়ী ব্যক্তি চিহ্নিতকরণ;
 
(খ) দলীয় প্রতীক বা একই রংয়ের পোশাক পরিধান করে কোনো পোলিং এজেন্টদের দায়িত্ব পালন অথবা উক্তরূপ পোলিং এজেন্ট বা একইরূপ পোশাক পরিহিত ব্যক্তিরা বিক্ষিপ্তভাবে ভোটকক্ষে বিচরণ, কোনো ক্ষেত্রে গোপনকক্ষে প্রবেশ, উল্লিখিত পোশাক উপঢৌকন বা অর্থের বিনিময়ে নেওয়া কিনা ইত্যাদি ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটন ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের চিহ্নিতকরণ;
 
(গ) পোলিং এজেন্ট বা অবৈধ কোন ব্যক্তি গোপন কক্ষে প্রবেশ করে নিজেই ভোটপ্রদান, ভোটার কোন প্রার্থীকে ভোট দিচ্ছেন তা গোপন কক্ষে উঁকি দিয়ে বা ঢুকে অবলোকন করা, ভোটপ্রদানে বাধা প্রদান, ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা ভোটকক্ষে ঢুকে নিজেই ভোট দেওয়া বা ভোটারকে প্রভাবিত করা অথবা পোলিং এজেন্ট নয় এ ধরনের ব্যক্তি ভোটদানে ভোটারকে প্রভাবিত করার বিষয়ে দায়ী ব্যাক্তিদের সনাক্তকরণ;
 
(ঘ) নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের বিষয়ে সব পদক্ষেপ গ্রহণের পরেও এ ধরনের ঘটনা কেন ঘটলো, কারা দায়ী তা চিহ্নিত করা; এবং
 
(ঙ) উল্লিখিত বিষয়সহ প্রাসঙ্গিক অন্য কোনো বিষয় থাকলে তা পর্যালোচনাপূর্বক সুপারিশ প্রদান।
 
এ নিয়ে সিইসি হাবিবুল আউয়াল ইতোমধ্যে বলেছেন তার কমিশন গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯১ ধারা অনুযায়ী, নির্বাচন বন্ধ করেছেন এবং সে অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেবেন।
 
৯১-এর বিভিন্ন উপধারাতে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন পুরো নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় তফসিল দিতে পারে। অথবা ব্যাপক অনিয়মে দায়ীদের প্রার্থিতা বাতিল করে পার্শিয়াল নির্বাচন দিতে পারে। এছাড়া দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের অনিয়ম প্রমাণিত হলে নির্বাচন কর্মকর্তা আইনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারে।
 
গাইবান্ধা-৫ আসনটি ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলা নিয়ে গঠিত। উপ-নির্বাচনে সাঘাটা উপজেলায় ৮৮টি এবং ফুলছড়ি উপজেলায় ৫৭টিসহ মোট ১৪৫টি কেন্দ্রে ৯৫২টি ভোটকক্ষ স্থাপন করা হয়েছিল।
 
সাঘাটা উপজেলার ১০টি ও ফুলছড়ি উপজেলার সাতটিসহ মোট ১৭টি ইউনিয়নে মোট ভোটার রয়েছে তিন লাখ ৩৯ হাজার ৭৪৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৬৯ হাজার ৫৮৩ এবং নারী ভোটার এক লাখ ৭০ হাজার ১৬০।
 
অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া টানা নয় মাস ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই শেষে গত ২২ জুলাই দিনগত রাত ২টায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ কারণে তার আসনটি সংসদ সচিবালয় শূন্য ঘোষণা করলে নির্বাচনের আয়োজন করে নির্বাচন কমিশন। সংবিধান অনুযায়ী, আগামী ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে এই উপ-নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়