নিয়মিত দোয়া ফোকাস ঠিক রাখে! | মতামত | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮
মতামত

নিয়মিত দোয়া ফোকাস ঠিক রাখে!

জোবায়ের রুবেল

প্রকাশিত: ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১৩:১৩ আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০২১ ১২:৪০

জোবায়ের রুবেল | প্রকাশিত: ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১৩:১৩


লেখক


‘তোমরা দোয়া কবুল হওয়ার পূর্ণ আস্থা নিয়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করো। তোমরা জেনে রাখো, আল্লাহ নিশ্চয়ই অমনোযোগী ও অসার মনের দোয়া কবুল করেন না।’ তিরমিজি।
---


হ্যাপিনেসের জন্য বেশিরভাগ মানুষের কাছেই গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে সাফল্য। কিন্তু সাফল্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ফোকাস। আর নিয়মিত দোয়া আপনার ফোকাস ঠিক রাখে। ফোকাস ঠিক থাকলে আপনার সাফল্যের তালিকা দিন দিন ভারী হবে।
আল্লাহ যেমন অমনোযোগী ও অসার লোকের দোয়া কবুল করেন না, তেমনি অমনোযোগী ও অসার লোক যাদের ফোকাস ঠিক নেই, তাদের সাফল্য আসে না।


আবার দোয়া করার জন্য যেমন দোয়া কবুল হওয়ার পূর্ণ আস্থা নিয়ে দোয়া করতে হবে, তেমনি সাফল্যের জন্য সাফল্য লাভের পূর্ণ আস্থা নিয়ে কাজ করতে হবে। যার মধ্যে দোয়া কবুলের পূর্ণ আস্থা থাকে এবং সাফল্য লাভের পূর্ণ আস্থা থাকে, সেই ব্যক্তি সাফল্য লাভের আগেই পূর্ণ হ্যাপি হয়ে থাকেন। তাই তিনি কোনো বাধাবিপত্তি ছাড়াই দ্রুত সফল হয়ে ওঠেন। আল্লাহর কত সুন্দর ব্যবস্থা। বিশ্বাস আর কর্ম যদি একসাথে হয়, তো সব থাকবে আপনার দখলে।


দোয়া আপনার সাফল্যের জন্য দুই ভাবে কাজ করে। এক. আপনার ফোকাস ঠিক রাখে। দুই. স্পিরিচুয়াল এনার্জি (বিশ্বাস) বাড়িয়ে তোলে। যার ফলে আপনি পার্থিব ও অপার্থিব শক্তিতে হয়ে ওঠেন বলিয়ান। তখন ফোকাস অনুপ্রেরণা আরো বাড়িয়ে দেয়। সুখ ও সাফল্যের পথ তখন আল্লাহ দেখান। নিচের আয়াতটি দেখুন :


‘আর যখন আমার বান্দাগণ আমার সম্বন্ধে তোমাকে জিজ্ঞেস করে, তখন তাদের বলে দাও, নিশ্চয়ই আমি নিকটে। কোনো আহ্বানকারী যখনই আমাকে ডাকে, তখন আমি তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে থাকি। সুতরাং তারা যেন আমার ডাকে সাড়া দেয় এবং আমাকে বিশ্বাস করে। এতে করে তারা সঠিক পথে চলতে পারবে।’ সুরা বাকারা, আয়াত : ১৮৬।


আপনি কেবল মনে বিশ্বাস রাখুন, পথ দেখানোর দায়িত্ব আল্লাহর। বিশ্বাসীরা সুখী হয় এবং সরল পথে চলতে পারে এ কারণেই। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি যার দেয়ার ক্ষমতা আছে, তার কাছে চাইলে তিনি বিব্রত হন না। বরং চাইলে তিনি আপনার প্রতি খুশি হবেন।
রাসুল (স.) বলেন,


‘মানুষের উচিত তার সমস্ত প্রয়োজন পূরণে কেবল আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা। এত বেশি যে, তার যদি কোনো জুতার ফিতা নষ্ট হয়ে যায়, তবে সেই জুতার ফিতা সরবরাহের জন্য আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করে। আর যদি তার লবণের প্রয়োজন হয়, তবে সে তার কাছে একটি পাঠানোর জন্য হৃদয় দিয়ে প্রার্থনা করে।’ তিরমিজি।


আপনি যদি প্রোডাকটিভ হ্যাপি হতে চান, জীবনে সফলতা প্রত্যাশা করেন এবং পরকালে আপনার প্রতিদানকে বহুগুণে পেতে চান, তাহলে হাত বাড়িয়ে আল্লাহর কাছে সবরকমের বারাকাহ এবং সাফল্যের জন্য দোয়া করুন। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, আপনার জীবন ও কর্ম শান্তিময় এবং সহজ হয়ে উঠবে।
বিশ্বাসীদের জন্য দোয়া একটি হাতিয়ার। এই হাতিয়ার নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন সুখ ও সাফল্যের জন্য। তবেই আপনি দেখবেন জীবনের যেকোনো কঠিন মুহূর্তেও আপনি আপনার ফোকাস থেকে সরে যাচ্ছেন না। পৃথিবীর যে কেউ যদি বলে এটা সম্ভব নয়, সেই কাজটি আপনি হাসিমুখে তখনো করে যেতে পারবেন। দোয়ার শক্তি এতটাই।


প্রোডাকটিভ হ্যাপিনেস আনলক করার ব্যবহারিক কৌশল :

১. সচেতনভাবে দোয়া করুন

প্রতিদিন আপনি যে দোয়া করছেন, সচেতনভাবে সে দোয়াটা করবেন, পাওয়ার পূর্ণ আস্থা নিয়ে করবেন। আমি অনেককে দেখেছি যারা দোয়া করেন, কিন্তু কী দোয়া করলেন সেটা মনে রাখেন না। আমি তাদের অনুরোধ করছি- দোয়া করার পরে অবশ্যই মনে রাখুন আপনি কী দোয়া করলেন এবং নিয়মিত কী দোয়া করছেন। তবেই দেখবেন নির্দিষ্ট সময় পরে আপনি সে দোয়ার ফল পেতে শুরু করেছেন।


২. লজ্জাবোধ করবেন না

যখনই আপনার ব্যক্তিগত ও পেশাগত এবং সামাজিক জীবনে আপনার কাজে প্রয়োজন হয়, তখনই আল্লাহর কাছে যান এবং তার কাছে চাইতে কখনই লজ্জাবোধ করবেন না।
রাসুল (স.) বলেন,
‘আল্লাহ অত্যধিক লজ্জাশীল ও দাতা। যখন কোনো ব্যক্তি তার দরবারে দুই হাত তুলে (দোয়া করে), তখন তিনি তার হাত দুখানা শূন্য ও বঞ্চিত ফিরিয়ে দিতে লজ্জাবোধ করেন।’ তিরমিজি।

লেখক: জোবায়ের রুবেল, ফাউন্ডার, সুখের স্কুল




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top