সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২ , ১৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

modhura
Aporup Bangla

বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা ও আমাদের করণীয়

মতামত

ড. আতিউর রহমান

প্রকাশিত: ১৭:৫০, ১৭ নভেম্বর ২০২২

আপডেট: ১৮:০৪, ১৭ নভেম্বর ২০২২

সর্বশেষ

বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা ও আমাদের করণীয়

ড. আতিউর রহমান

যুক্তরাজ্য ও জাতিসংঘে ১৮ দিনের সফর শেষে গত ৪ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলনে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বরাবরই এ ধরনের সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। পরে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এবারের সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি কথা উচ্চারণ করেছেন।
তিনি জানিয়েছেন, জাতিসংঘে অনেক রাষ্ট্রনেতা এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রধানদের সঙ্গে তাঁর আলাপ হয়েছে। তাঁরা প্রায় সবাই তাঁকে আভাস দিয়েছেন যে সারা বিশ্বের জন্যই আগামী বছরটি মহামন্দার ঝুঁকি বহন করছে। প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট করে বলেছেন যে ‘বিশ্বব্যাপী একটি আশঙ্কা, ২০২৩ সালটি একটি মহাসংকটের বছর হবে। ’ কী হতে পারে এর ফলে? তিনি জানিয়েছেন, বছরটিতে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা প্রকট হতে পারে। সে জন্য আগে থেকেই আমাদের প্রস্তুতি নেওয়া দরকার। সেই প্রস্তুতি কী হতে পারে, সে কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। কৃষিই যে বিপদের দিনে আমাদের রক্ষাকবচ। তাই যার যার যে জায়গা আছে, চাষ শুরু করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। সংকট মোকাবেলায় কৃষি খাতের জন্য আলাদা করে বাজেটের কথাও বলেছেন।
খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় মানুষের বেঁচে থাকাই কষ্টের। প্রাকৃতিক ও মানুষের তৈরি নানা সংকট তিনি খুব কাছ থেকে দেখেছেন এবং এর প্রতিকারের উদ্যোগ নিয়েছেন। আমাদের মনে আছে, ১৯৯৮ সালের মহাবন্যার সময় তিনি সম্মুখসারির একজন যোদ্ধার মতো বিপর্যস্ত মানুষকে পর্যাপ্ত খাদ্যসহ প্রয়োজনীয় ত্রাণের ব্যবস্থাই শুধু করেননি, বন্যা-পরবর্তী কৃষির পুনর্বাসনের জন্য কৃষিঋণসহ সব উপকরণ বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। এমনকি বর্গাচাষিরাও যাতে কৃষিঋণ পান সে জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে হাটবাজারে ব্যাংকিং বুথ খোলার নির্দেশ দিয়েছিলেন। নাগরিক সমাজের অনেকের আশঙ্কা ছিল যে ওই বন্যার কারণে সৃষ্ট দুর্ভিক্ষে লাখ লাখ মানুষের প্রাণ যাবে। কিন্তু সুদক্ষ ত্রাণ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে তিনি নিশ্চিত করেছিলেন যে বন্যার অভিঘাতে তৈরি খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় যেন একজন মানুষেরও প্রাণ না যায়। একই সঙ্গে পুরো সমাজকে তিনি দায়বদ্ধ করতে পেরেছিলেন।
সরকারের সময়োপযোগী কৃষি পুনর্বাসন কর্মসূচির কারণে বন্যা-পরবর্তী ধান ও সবজির বাম্পার ফলন হয়েছিল। সেবার সরকার হেলিকপ্টারে করে এক জেলা থেকে অন্য জেলায় ধানের চারা সরবরাহ করতে দ্বিধা করেনি। আর কৃষি মন্ত্রণালয়ের বিএডিসি, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগসহ প্রতিটি অধিদপ্তর ও সংস্থা সরকারি-বেসরকারি সব উদ্যোগের সমন্বয় করে কৃষি উৎপাদনে রেকর্ড সৃষ্টি করেছিল। পরবর্তী যেকোনো সংকটকালে ওই অভিজ্ঞতার আলোকে বাংলাদেশের কৃষকহিতৈষী নেতৃত্ব সরকারি নীতিমালাকে সমন্বিত উপায়ে বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছে।
শুধু খাদ্যের জোগানই নয়, কৃষি গ্রামীণ মানুষের ৪০ শতাংশেরও বেশি কর্মসংস্থান নিশ্চিত করে। কৃষি ভালো করলে অকৃষি খাতও ভালো করে। বাড়ন্ত আধুনিক কৃষি শিল্পের কাঁচামাল ও দেশের সার্বিক অভ্যন্তরীণ চাহিদাও জোগায়। ফলে দেশে কোনো মন্দা দেখা দেয় না। ২০০৯ সালেও দেখা দিয়েছিল বিশ্ব আর্থিক সংকট। কিন্তু সংকট মোকাবেলায় সিদ্ধহস্ত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কৃষি, এসএমই, রপ্তানি ও প্রবাসী আয়ের ওপর বিশেষ নজর দিয়ে অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন কৌশল গ্রহণ করেছিলেন; যার ফলে বাংলাদেশের মানুষ ওই বিশ্ব আর্থিক সংকটের আঁচই পায়নি। উন্নয়নমুখী কেন্দ্রীয় ব্যাংক সেই সময়টায় আর্থিক অন্তর্ভুক্তির কৌশল নিয়ে সরকারের মাটিঘেঁষা উন্নয়ন অভিযাত্রায় শামিল হয়েছিল।
অন্তর্ভুক্তিমূলক সেই উন্নয়ন কৌশল কভিড-১৯-এর অর্থনৈতিক ঝাপটা মোকাবেলায় যথেষ্ট কাজে লেগেছে। সরকার এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংক মিলে প্রণোদনা কর্মসূচির আদলে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির এক উপযোগী কৌশল গ্রহণ করেছিল। ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি মোটেও ঝিমিয়ে পড়েনি, বরং উন্নয়নশীল ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম সবচেয়ে গতিশীল প্রবৃদ্ধির দেশ হিসেবে বাংলাদেশ সুনাম কুড়িয়েছে। জিডিপির প্রায় ৬ শতাংশ এই প্রণোদনার আওতায় স্বল্প সুদের ঋণ এবং সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এখনো কৃষি ও ছোট উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ বিশেষ পুনরর্থায়ন কর্মসূচি চালু করে বাংলাদেশ অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির চাকা গতিশীল রেখেছে। বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ যখন সারা বিশ্বের প্রবৃদ্ধি এ বছর এবং আগামী বছর ৩ শতাংশের আশপাশে রাখছে, সেসব প্রতিষ্ঠানই বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার এই দুই বছরই তার দ্বিগুণেরও বেশি হবে বলে তাদের অর্থনৈতিক প্রক্ষেপণে তুলে ধরেছে। এডিবি এর চেয়েও আরেকটু বেশির কথা বলছে। আর বাংলাদেশ আশা করছে তার প্রবৃদ্ধির হার এই সময়টায় ৭ শতাংশের কম হবে না।
এই মুহূর্তের বড় সংকট কী করে মূল্যস্ফীতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বজুড়েই বইছে এই প্রবল মূল্যস্ফীতির হাওয়া। বিশেষ করে খাদ্যমূল্যস্ফীতির দাপট বেশ আক্রমণাত্মক। এর ফলে মানুষের প্রকৃত আয় কমে যাচ্ছে। দারিদ্র্যের হারও বাড়ছে।
এই মূল্যস্ফীতির উৎস অভ্যন্তরীণ নয়। আমদানি করা এই মূল্যস্ফীতির পেছনে একদিকে কভিডের কারণে পর্যুদস্ত আন্তর্জাতিক সরবরাহ চেইন (বিশেষ করে জাহাজ ভাড়া)। তদুপরি ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের ফলে জ্বালানি, গ্যাস ও ভোজ্য তেলের পাশাপাশি খাদ্যমূল্য দারুণ হারে বেড়ে যাওয়ার কারণগুলো কাজ করছে। এর ওপর মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে নেমে এসেছে ডলারের মূল্যবৃদ্ধি। কভিডের সময় যুক্তরাষ্ট্রও ব্যাপক হারে তার অর্থনীতিতে অর্থ ঢেলেছিল। সেই অর্থ বাজার থেকে তুলে নেওয়ার লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক তার মৌলিক নীতি হার বাড়িয়েই চলেছে। এরই মধ্যে কয়েকবারে ৩ শতাংশের মতো মৌলিক সুদের হার বাড়িয়েছে ফেড। যেহেতু যুক্তরাষ্ট্রে এখনো মূল্যস্ফীতি ৮ শতাংশের বেশি, তাই সহজেই এই নীতি হার বাড়ানোর কৌশল থেকে সরে আসবে না ফেড। এর ফলে অন্যান্য মুদ্রার বিপরীতে ডলারের দাম বাড়ছে তো বাড়ছেই। বড় অর্থনীতির দেশগুলোর মুদ্রার বাস্কেটের মূল্যমানের চেয়ে এরই মধ্যে প্রায় ১৩-১৪ শতাংশ বেড়েছে ডলারের দাম। আর আমাদের মতো দেশের মুদ্রার তো কথাই নেই।
যুক্তরাষ্ট্রের বন্ড মার্কেট তেজি হচ্ছে এবং একই সঙ্গে ডলারের দামও বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে ফেড যাতে তার নীতি হার আর না বাড়ায় সে জন্য জাতিসংঘ পর্যন্ত আহবান জানিয়েছে। কেননা এর প্রভাবে বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার শঙ্কা বাড়ছে। এর শিকার হচ্ছে দুর্বল অর্থনীতির উন্নয়নশীল দেশগুলো। অন্যদিকে উন্নত দেশগুলোর মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ায় তাদের ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। এর নেতিবাচক প্রভাব গিয়ে পড়েছে আমাদের মতো রপ্তানিকারক দেশগুলোর ওপর। বিশেষ করে মূলত বস্ত্র রপ্তানির দেশ বলে পরিচিত বাংলাদেশের বিদেশি মুদ্রা আয়ে বেশ খানিকটা ঝুঁকি তো তৈরি হচ্ছেই। এমনিতেই হঠাৎ আমদানি খরচ বেড়ে যাওয়ায় বড় ধরনের বাণিজ্য ঘাটতি দেখা দিয়েছিল বাংলাদেশে। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার বিলাসী ও কম অপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে কয়েক মাস ধরেই অনেক নীতি গ্রহণ করেছে। ঋণের মার্জিন বাড়িয়ে দেওয়া, বেশি মূল্যের এলসি নিবিড়ভাবে মনিটর করা, ডলার খরচ কমানোর জন্য প্রশাসনিক অনেক কৃচ্ছ্র কর্মসূচি হাতে নেওয়া এবং অপ্রয়োজনীয় উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়নের গতি থামিয়ে দেওয়ার মতো সুবিবেচনামূলক নীতিমালার সুফল পেতে শুরু করেছে বাংলাদেশ।
দেশে আরো বেশি ডলার প্রবাসী ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে আনার জন্য টাকার বড় ধরনের অবমূল্যায়ন এবং নিয়ম-নীতি সহজ করার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ। তাই বাণিজ্য ঘাটতি ও চলতি হিসাবে ঘাটতি গত তিন মাসে বেশ কমেছে। এর ফলে প্রায় এক বছর পরে হলেও রিজার্ভ ক্ষয়ের ধারাটি থেমেছে। ধীরে হলেও রিজার্ভ ফের বাড়তে শুরু করেছে। ডলারের একাধিক হারের বদলে সবার জন্য গ্রহণযোগ্য একটি হারের দিকে এগোতে পারলে প্রবাসী ও রপ্তানি আয়ের গতি আরো বাড়বে বলেই মনে হয়। সামনের দিনগুলোতে একদিকে বৈদেশিক মুদ্রার আয় বাড়বে এবং অন্যদিকে আমদানি খরচ কমবে আশা করা যায়। দুইয়ে মিলে ডলার-টাকা বিনিময় হার স্থিতিশীল হবে এবং রিজার্ভের পরিমাণ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকবে।
এই প্রেক্ষাপটে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশ্ব মহামন্দার হুঁশিয়ারিকে গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ করে আমাদের খুবই বিচক্ষণতার সঙ্গে পা ফেলতে হবে। কিছু নীতি অনুসরণ করা গেলে এই মহাসংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশ অনেক দেশের চেয়েই ভালো করবে।
প্রধানমন্ত্রী যেমনটি বলেছেন, কৃষিকেই আমাদের সবচেয়ে বড় রক্ষাকবচ হিসেবে গুরুত্ব দিতে হবে। সে জন্য যথোপযুক্ত বাজেট সহায়তা ছাড়াও সহজ শর্তে ঋণ, সম্প্রসারণ এবং মার্কেটিং সমর্থন দিয়ে যেতে হবে।
কৃষিভিত্তিক শিল্পের প্রসারের পাশাপাশি কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্যের রপ্তানি বাড়ানোর জন্য সব ধরনের নীতি সমর্থন দিতে হবে।
বদলে যাওয়া গ্রামবাংলায় অকৃষি খাতের প্রসারের জন্য ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের হাতে প্রয়োজনীয় পুঁজি জোগান দিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক ছোট ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য অল্প সুদে ২৫ হাজার কোটি টাকার যে পুনরর্থায়ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে, তা দ্রুত বাস্তবায়নের দিকে মনোযোগ বাড়াতে হবে। বাস্তবায়নের গতি কতটা, তা দেখার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক ডিজিটাল মনিটরিং জোরদার করতে পারে। এই কর্মসূচি যেন অব্যাহত থাকে সে জন্য আরো ২৫ হাজার কোটি টাকার তহবিল পাইপলাইনে রাখা যেতে পারে।
এই কর্মসূচির মধ্যে সোলার সেচ প্রকল্প যুক্ত করা উচিত। পাশাপাশি কৃষি যান্ত্রিকীকরণ কর্মসূচির অধীনে যে ভর্তুকির সুযোগ দেওয়া হচ্ছে, তা এই সোলার সেচ উদ্যোগের জন্যও প্রযোজ্য করা হোক। বর্তমানে প্রায় ১৪ লাখ ডিজেলচালিত সেচ পাম্প আছে। এর অর্ধেক পরিমাণও যদি সোলারে রূপান্তর করা যায়, তাহলে একদিকে জ্বালানি আমদানি খরচ কমবে, অন্যদিকে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাফল্যের ঝুড়িতে নয়া উপকরণ যুক্ত হবে। কৃষকেরও দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ বাড়বে।
ব্যাংকগুলোকে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগে ঋণ দিতে উৎসাহী করার জন্য সরকার বাংলাদেশ ব্যাংক মাধ্যমে ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিমের জন্য অর্থ বরাদ্দ করেছে। সোলার পাম্পকেও এই কর্মসূচির সুবিধা দেওয়া যেতে পারে। তাহলে কৃষিতে বিনিয়োগের হার বাড়বে। প্রয়োজনে এই গ্যারান্টি স্কিমের জন্য বাজেটারি বরাদ্দ আরো বাড়ানো যেতে পারে।
ন্যানো ক্রেডিট ও ছোট ব্যবসায়ীদের জন্য ডিজিটাল ফিন্যান্সের আওতায় ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই ঋণ দেওয়ার যে উদ্যোগ বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়েছে, তা অবশ্যই প্রশংসনীয়। আধুনিক কৃষি উদ্যোক্তাদেরও এই সুযোগ দেওয়া হোক।
কৃষির পরেই প্রবাস আয় বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বড় এক চালক হিসেবে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে। হালে নতুন করে অনেকেই প্রবাসী কর্মী হিসেবে বিদেশে যাচ্ছেন। তাঁরা যাতে সহজেই উপযুক্ত রেটে তাঁদের বিদেশি আয় দেশে পাঠাতে পারেন সেদিকে নীতি সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। এক্সচেঞ্জ হাউসগুলো যেন তাঁদের ঠকাতে না পারে সেদিকে নজরদারি বাড়াতে হবে। একই সঙ্গে হুন্ডির ক্ষেত্রগুলো উপড়ে ফেলার যে উদ্যোগ বাংলাদেশ ব্যাংক ও আইন-শৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষ হালে নিচ্ছে, সেগুলোর ব্যাপ্তি আরো বাড়াতে হবে।
বড় আকারের প্রবাস আয় দেশে আনার জন্য বিনিয়োগ বন্ড, ট্রেজারি বন্ডসহ নানা ধরনের বিনিয়োগ প্রবাসীরা যাতে সহজেই করতে পারেন সে জন্য ডিজিটাল লেনদেনের যে উদ্যোগ বাংলাদেশ ব্যাংক নিয়েছে, তা আরো সহজলভ্য করতে হবে। এ বিষয়ে যথেষ্ট তথ্যও প্রবাসীদের দিতে হবে। এনআইডি সম্পর্কিত জটিলতা এবং বন্ড রিনিউয়াল জটিলতা দ্রুত দূর করে প্রবাসীদের মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি বিনিয়োগে উৎসাহিত করতে হবে।
প্রবাসীদের সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যুক্ত করা ছাড়াও তাঁদের ছেলেমেয়েদের আগেভাগে বৃত্তি ও উপবৃত্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
প্রবাসী কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধির কর্মসূচিতে অগ্রাধিকার দেওয়া যেতে পারে। তাঁরা যখন ছুটিতে দেশে আসেন অথবা চাকরি হারিয়ে দেশে ফেরেন, তাঁদের জন্য বিশেষ দক্ষতা বৃদ্ধির প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে যুক্ত করার উদ্যোগ জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ নিশ্চয় নিতে পারে।
প্রবাসীদের যাঁরা ওয়ার ট্রান্সফারের মাধ্যমে প্রবাস আয় পাঠান এবং ফ্রিল্যান্সিংয়ের অর্থ যাঁরা দেশে আনেন, তাঁদের কম রেটে ডলার বিক্রি করতে হয়। বিদেশি আয়কারকদের একই হারে ডলার বিনিময় হার দেওয়ার জন্য যে দাবি উঠেছে, তা আমার কাছে যুক্তিসংগতই মনে হয়। এ বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।
এরই কথা রপ্তানিকারকদের বেলায়ও খাটে। তাঁরাই বা কেন কম রেটে ডলার বিক্রি করবেন। আমদানিকারকরাই বা কেন বেশি দামে ডলার কিনবেন। একটি বাজারনির্ভর বিনিময় হার সবার জন্য তৈরি করতেই হবে আমাদের। ভারত তো তা করতে পেরেছে। আমরা কেন পারব না?
যে সব ব্যাংক রপ্তানি বা প্রবাস আয় বেশি সংগ্রহ করতে পারছে না, তাদের আমদানি দায় মেটানো বেশ কঠিন হয়ে পড়ছে। সে জন্য যেসব ব্যাংকের বিদেশি মুদ্রার আয় বেশি, তাদের একটি রেটের আশপাশেই একটি ব্যান্ডের মধ্যেই ডলার বিক্রির নির্দেশনা কেন্দ্রীয় ব্যাংককেই দিতে হবে।
এ ছাড়া আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বা আর্থিক সংস্থা থেকে কম সুদে দীর্ঘমেয়াদি ঋণ সংগ্রহে বাংলাদেশ যথেষ্ট পারদর্শিতা দেখাচ্ছে। গুণমানের প্রকল্প বাস্তবায়নে গতি এনে এ ধরনের বিদেশি সহযোগিতা আরো বেশি বেশি সংগ্রহ করে যেতে হবে। বেশি সুদের কম সময়ের বাণিজ্যিক বা হার্ড টার্ম ঋণ নেওয়ার আগে দশবার চিন্তা করাই শ্রেয় হবে।
বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোর বাস্তবায়নের কাজ দ্রুত শেষ করে বিদেশি সরাসরি বিনিয়োগ বাড়াতে উদ্যোগী হতে হবে। বাণিজ্যিক অর্থায়নের ওপর মনিটরিং বাড়িয়ে সহজে বিদেশে অর্থপাচারের ছিদ্রগুলো অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।
এ রকম আরো অনেক নীতি পরামর্শ দেওয়া যেতে পারে। সব অংশীজনের সঙ্গে বসে নিবিড় আলাপ করে, নিয়ম-নীতি পর্যালোচনা করে নতুন স্মার্ট নীতি চালু করার সুযোগ নিশ্চয় আছে। এই সংকটকালে সবাইকে ধৈর্য ধরতে হবে। বাজারে প্যানিক ছড়ায় এমন কিছুই করা যাবে না। দীর্ঘদিন ধরে স্বকীয় দেশজ অনেক অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন নীতি কৌশল আমরা উদ্ভাবন করেছি। পরীক্ষিত এসব নীতিকাঠামোর ওপর ভরসা করে, হিসাব করে এগোলে নিশ্চয় চলমান মন্দা বা আগামী দিনের মহামন্দা মোকাবেলা করেই বাংলাদেশের উন্নয়নের সুনাম ধরে রাখতে পারব। এ জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করে যেতে হবে।
লেখক: অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর। 
 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়